এখন সময় :
,

মিরসরাইয়ে পাওনা টাকা চাওয়ায় নারীর মাথা ফাটালো ইউপি সদস্য


মিরসরাই প্রতিনিধি>>
মিরসরাইয়ে পাওনা টাকা চাওয়ায় এক নারীর মাথা ফাটানোর অভিযোগ উঠেছে এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে। ওই ইউপি সদস্যের নাম ফেয়ার আহম্মেদ মিন্টু। তিনি করেরহাট ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান ইউপি সদস্য। এই ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী স্বপ্না আক্তার। সে সাইবেনিখিল এলাকার রানা টেইলার্সের স্ত্রী। উপজেলার করেরহাট বাজারের মুরগীর হাটে এই ঘটনা ঘটে। গত ২৬ ডিসেম্বর থেকে বর্তমানেও ওই নারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মস্তাননগর হাসপাতালের মহিলা ওয়ার্ডের ১২ নম্বর কেবিনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
জোরারগঞ্জ থানায় দায়েরকৃত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত বেশকিছুদিন পূর্বে স্বপ্না আক্তারের দখলীয় বসতঘর সংলগ্ন ২ শতক জায়গা তার পার্শ্ববর্তী বাড়ীর জাহাঙ্গীরের নিকট বিক্রি করলে কিছু টাকা দেওয়ারপর আরো ৩৭ হাজার টাকা বকেয়া থাকে। পরবর্তীতে জাহাঙ্গীর বাকী টাকা প্রদানে গড়িমসি করতে থাকলে স্বপ্না করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদে বাদী হয়ে নালিশ করার পর পরিষদ কতৃক ওই টাকা ফেরত দেওয়ার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৩৭ হাজার টাকার মধ্যে ১৭ হাজার টাকা পান। বাকী আরো ২০ হাজার টাকা জাহাঙ্গীর ইউপি সদস্য মিন্টুর কাছে জমা দেন। স্বপ্না একাধিকবার ইউপি সদস্য মিন্টুর কাছে জমা থাকা ২০ হাজার টাকা চাইলেও তিনি শুধু সময়ক্ষেপন করে যাচ্ছিলেন। সর্বশেষ গত ২৬ ডিসেম্বর বিকেলে ওই টাকা পুণরায় চাইলে মিন্টু স্বপ্নাকে লক্ষ্য করে চেয়ার ছুঁড়ে মারলে তার মাথা ফেটে যায়। তার আতœচিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে গুরুতর আহতাবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মস্তাননগর হাসপাতালে ভর্তি করায়। ২৮ ডিসেম্বর জোরারগঞ্জ থানায় এই ঘটনায় স্বপ্না আক্তার বাদী হয়ে একটি লিখিত অভিযোগ (নম্বর-১৪৬৩) দায়ের করেন।
ভুক্তভোগী স্বপ্না আক্তার জানান, আমি পাওনা টাকার জন্য মিন্টু মেম্বারের কাছে একাধিকবার গেলেও তিনি এই বিষয়ে কোন সাড়া দিচ্ছিলেন না। সর্বশেষ পাওনা টাকা চাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি আমার মাথায় চেয়ার দিয়ে আঘাত করে মাথা ফাটিয়ে দেয়। আমি এই ঘটনার যথোপযুক্ত বিচার চাই।
স্বপ্নাকে লক্ষ্য করে চেয়ার ছুঁড়ে মারার কথা স্বীকার করে করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ফেয়ার আহম্মদ মিন্টু বলেন, এলাকার ব্যাপার এলাকাতে সমাধান করে দেবো। হাসপাতালে ওকে দেখার জন্য আমার পক্ষ থেকে প্রতিনিধি পাঠিয়েছি। মিডিয়ার কাছে গেলে কোন সমাধান হবে? বিচার শেষ হওয়া ছাড়া কোন টাকা দেওয়া হবে না, ওই জায়গা নিয়ে ৩ জন বাদী; তাই টাকা স্বপ্নাকে দেওয়া সম্ভব না। দেড় বছর ঘুরেও জাহাঙ্গীরের কাছ থেকে স্বপ্না টাকা নিতে পারেনি, আমি নানাভাবে চেষ্টা করে টাকাটা নিই। বারবার টাকা চাওয়ায় এবং আমার সাথে বাজারের মধ্যে খারাপ আচরণ করায় রাগ করে একটি প্লাস্টিকের চেয়ার ছুঁড়ে মারি, তবে বেশি সমস্যা হয়নি।
স্বপ্নার দেওয়া লিখিত অভিযোগের তদন্ত কর্মকর্তা জোরারগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আলমগীর জানান, থানায় স্বপ্নার দেওয়া লিখিত অভিযোগ ৩১ ডিসেম্বর হাতে পেয়েছি। অভিযোগের তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নোটিশ :   FeniVision24.com প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

প্রধান সম্পাদক: মোহাম্মদ তমিজ উদ্দিন, সম্পাদক: জহিরুল হক মিলু
ইমেইল : fenivision@gmail.com, মোবাইল: 01823644138, 01841710509
ঠিকানা: ৪৩১ সোনালী ভবন(২য় তলা) ট্রাংক রোড়, ফেনী