এখন সময় :
,

সোনাগাজীর উত্তর চরচান্দিয়ার বিশিষ্ট দানবীর ও সমাজ সেবক হাজী মো. মোস্তফার বিরুদ্ধে দুর্বৃত্তদের অপপ্রচার


স্টাফ রিপোর্টার->>> ফেনী জেলার সোনাগাজী উপজেলার চরচান্দিয়া ইউনিয়নের উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের আরফান আলী সারেং বাড়ির বিশিষ্ট দানবীর ও সমাজ সেবক হাজী মো. মোস্তফার বিরুদ্ধে একটি সংঘবদ্ধ চক্র নানা অপপ্রচার ও গভীর ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সৌদি প্রবাসী ব্যবসায়ী হাজী মো. মোস্তফা মানব সেবার ব্রতি নিয়ে যখন নিজের অর্জিত অর্থ মানব কল্যাণ ও সমাজ সেবায় ব্যয় করে যাচ্ছেন, ঠিক তখনই একটি সন্ত্রাসি চাঁদাবাজ শ্রেণির দুর্বৃত্তদের লোপুপ দৃষ্টি পড়ে তার অর্থের উপর। তার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার আর ষড়যন্ত্রে মেতে উঠে এ দুষ্টু চক্রটি। কথায় কথায় চাঁদা দাবি, আর না দিলে তার বিরুদ্ধে চালায় তারা নানা অপপ্রচার। পরিবার-পরিজন ছেড়ে দেশের সীমানা পেরিয়ে দেশের অর্থনৈতিক যোগান দিতে সুদূর সৌদি আরবে পাড়ি জমান হাজী মো. মোস্তফা। প্রবাসের মাটিতে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে দিন-রাত পরিশ্রম করে কষ্টার্জিত অর্থ ব্যয় করে চলেছেন দেশ ও দেশের মানুষের কল্যাণে। গরীব-দুঃখী ও হতাশা গ্রস্ত বিপন্ন মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে নিরবে দান করে চলেছেন এ দানবীর। চরচান্দিয়া ও চরদরবেশ ইউনিয়নের প্রায় ৫০টি বাস্তহারা পরিবারকে নিজের অর্থে বসত ঘর নির্মাণ করে দিয়েছেন তিনি। ব্যাক্তিগত তহবিল থেকে প্রায় ১ কোটি টাকা খরচ করে নিজ গ্রাম উত্তর চরচান্দিয়া আবদুল বারেক জামে মসজিদ (বহুতল) নির্মাণ করে দিচ্ছেন তিনি। এছাড়াও সোনাগাজী মডেল থানা জামে মসজিদ, তালিমুদ্দিন হালিমিয়া মাদ্রাসা, ওলামাবাজার দারুল উলুম আল হোছাইনিয়া মাদ্রাসা, ওলামা বাজার হাজী সেকান্তর মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, আরমান একাডেমী, ওলামাবাজার জামে মসজিদ, রসুলপুর জামে মসজিদ ও মাদ্রাসা, মোহাম্মদপুর জামে মসজিদ, চাঁন মিয়ার দোকান জামে মসজিদ ও মাদ্রাসা সহ অসংখ্য ধর্মীয় ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিরবে অকাতরে মোটা অঙ্কের আর্থিক অনুদান দিয়েছেন হাজী মো. মোস্তফা। চরচান্দিয়া ইউনিয়ন ও আশপাশের এলাকার গরীব অসহায় লোকদের জন্য বিশুদ্ধ পানীয় জলের ব্যবস্থা করতে নিজের অর্থয়নে ১০টি গভীর নলকূপ বসিয়ে দিয়েছেন তিনি। শুধু তাই নয়, এলাকার গরীব মেয়েদের বিয়েতে ও গরীব অসুস্থ্য লোকদের মাঝে অকাতরে আর্থিক অনুদান দিয়ে যাচ্ছেন এ সমাজ সেবক। প্রচার বিমূখ সমাজ সেবক হাজী মো. মোস্তফা জানান, মানব সেবার মাঝে নিজের সুখ খুঁজে পান তিনি। কোন কিছু পাওয়ার আশায় তিনি সমাজ সেবা করছেননা, ক্ষণস্থায়ী জীবনে শুধু মহান আল্লাহকে রাজী খুশি করতে তিনি নিরবে মানব সেবা করে যাচ্ছেন। কিন্ত তার এ নিরব মানব সেবায়ও বাধা হয়ে দাঁড়ায় এলাকার পরশ্রীকাতর সন্ত্রাসি, চাঁদাবাজ ও জলদস্যু চক্র। আর এ চক্রটিও নানা সময় নানা অজুহাতে তার কাছ থেকে চাঁদা নিত। অনেক সময় চাঁদা না দিলে তার অর্থায়নে নির্মাণাধীন আবদুল বারেক মসজিদের নির্মাণ সামগ্রীও চুরি করে নিয়ে যেত এ চক্রটি। সাম্প্রতিক সময়ে জলদস্যু আকবরের ভাগিনা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসি হাবিবুর রহমান সুজনকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করে সোনাগাজী মডেল থানার পুলিশ। এসআই নুরুল আমিন বাদি হয়ে তার বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করেছেন। বর্তমানে সন্ত্রাসি সুজন ওই অস্ত্র মামলায় ফেনী কারাগারে রয়েছে। উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের জামায়াত নেতা আবু বক্কর ছিদ্দিক মানিক, তার ভাই আহসান উল্লাহ, ফরিদ খান ও আবুল হাশেম সহ ৪/৫ জন লোক মিলে সমাজ সেবক হাজী মো. মোস্তফার বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ পোস্টার ছাপিয়ে তাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করে। সন্ত্রাসি সুজনের গ্রেফতারের সাথে হাজী মো. মোস্তফার বিন্দুমাত্র সংশ্লিষ্টতা না থাকলেও তাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতে সন্ত্রাসি সুজনের সহযোগিরা নানা অপপ্রচার চালাতে থাকে। সন্ত্রাসি সুজন উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের হারুনুর রশিদের ছেলে। ইভটিজিং ও সন্ত্রাসি কর্মকান্ড সহ অসংখ্য অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে সুজনের বিরুদ্ধে। হাজী মো. মোস্তফার এক ছেলে চীনের সরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এমবিবিএস’ এ অধ্যয়নরত এবং মেয়ে সাউথইসট ইউনিভার্সিটিতে এলএলবি’তে অধ্যয়নরত রয়েছে । হাজী মো. মোস্তফা আরো দাবি করেন, স্থানীয় কতিপয় সন্ত্রাসি ও চাঁদাবাজ সিন্ডিকেটের অব্যাহত নানা অপপ্রচার ও গভীর ষড়যন্ত্র তিনি সমাজ সেবায় আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন। দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে ও মানবতার কল্যাণে নিজেকে বিলিয়ে দিতে নিরন্তর সংগ্রাম করে চলেছেন হাজী মো. মোস্তফা। প্রেস এন্ড পাবলিকেশন্স আইন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার কারী দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্ততি নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন। এ ছাড়া যে বা যারা দেয়ালে প্রস্টার সাঁটিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধেও আইনী পদক্ষেপ নেবেন বলে জানিয়েছেন। স্থানীয় গ্রামবাসীর দাবি, হাজী মো. মোস্তফা অসহায় নির্যাতিত বঞ্চিত মানুষদের ত্রাণকর্তা হিসেবে নিরবে সমাজ সেবা করে যাচ্ছেন। তার বিরুদ্ধে অপপ্রচারকারী ও ষড়যন্ত্র কারীদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহন করে শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানান তারা।

নোটিশ :   FeniVision24.com প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

প্রধান সম্পাদক: মোহাম্মদ তমিজ উদ্দিন, সম্পাদক: জহিরুল হক মিলু
ইমেইল : fenivision@gmail.com, মোবাইল: 01823644138, 01841710509
ঠিকানা: ৪৩১ সোনালী ভবন(২য় তলা) ট্রাংক রোড়, ফেনী